একশ লাল আগুনের পিঁপড়া

128 Views

Spread the love

কবি মেরিলিন চিন ১৯৫৫ সালে হংকংয়ে জন্মগ্রহণ করেন তবে ওরেগনের পোর্টল্যান্ডে বেড়ে ওঠেন। তিনি ম্যাসাচুসেটস বিশ্ববিদ্যালয় থেকে চীনা সাহিত্যে বিএ এবং আইওয়া লেখকদের কর্মশালা থেকে এমএফএ অর্জন করেছেন। একজন খ্যাতিমান নৃবিজ্ঞানী, অনুবাদক এবং শিক্ষাবিদের পাশাপাশি কবি ও উপন্যাসিক। তার শিল্পকর্মগুলো এশিয়ান আমেরিকান এবং নারীবাদী হিসাবে সুপরিচিত। তাঁর কবিতা প্রত্যক্ষ এবং প্রায়শই দ্বন্দ্বমূলক মনোভাবের জন্য প্রসিদ্ধ।

সমসাময়িক নারী কবিদের প্রাবন্ধিক অ্যানি এলিজাবেথ গ্রিন মেরিলিনকে নিয়ে লিখেছেন—

“সাংস্কৃতিক সংশ্লেষের বেদনাসমূহের কবিতাগুলি তাকে প্ররোচিত করেছে”

অ্যাড্রিয়েন রিচ বলেছেন—

“মেরিলিন চিনের কবিতা তাদের উজ্জ্বল সাংস্কৃতিক হস্তক্ষেপ, তাদের থিয়েটারের গোড়ামি, কঠোর ও কোমলতা এবং তাদের সমবেদনাকে বিপুল বৈদগ্ধ্য বিদ্রুপতার ভেতর দিয়ে কল্পনাকে উজ্জীবিত করে এবং উস্কে দেয়। তার পাঠ আমাদের কবিতার সম্ভাবনাকে আরও উন্মুক্ত করেছে এবং আমরা আবারও অনুভব করি যে, এটি কার্যকরী টেকসই শিল্প হতে পারে।”

চিনের বই ফিনিক্স গন ইন দ্য প্রোগ্রেসিভ বইটি পর্যালোচনা করে ম্যাথু রথসচাইল্ড মন্তব্য করেছিলেন যে,

“চিনের একটি একান্ত কণ্ঠস্বর রয়েছে, যা বিদগ্ধ, ব্যঞ্জনাময়, বাগরীতিসিদ্ধ, শোকবহ ও পার্থিবও বটে। তিনি গভীরভাবে ব্যক্তিগত ব্রাশ দিয়ে সাংস্কৃতিক মিলনের ক্যানভাসকে আঁকেন।”

প্লেন ইয়েলোর রেপসোডিতে চীন তার এশিয়ান-আমেরিকান পরিচয় বহন করে চলেছেন। তিনি স্বীকার করেন যে, “পৃথিবীতে ব্যথা ছাড়া কোনো জীবন নেই।”

প্লেইন ইয়েলো দুর্ঘটনাক্রমে তার মাবাবা এবং দাদাদাদির সংসার এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মহিলা কবি হিসাবে বাস্তবতার মধ্যকার লড়াইকে ধ্যান করে লেখা। আনুষ্ঠানিকভাবে, বইটি ঐতিহ্যবাহী চীনা সংগীত এবং আমেরিকান ব্লুজগুলির অনুপ্রেরণা তৈরি করে।

চীন তাঁর নিজস্ব কবিতা সম্পর্কে সমকালীন নারী কবিদের ব্যাখ্যা করেছিলেন এভাবে :

“আমি বিশ্বাস করি যে, আমার কাজগুলি প্রযুক্তিগত ও তাত্ত্বিকভাবে দুঃসাহসের। ডায়াসপার দুঃখ-বেদনা সংমিশ্রণের ভাব ও ভ্রমণে সজ্জিত। নিজের সমস্যা না হলে দেশের সমস্যা কী?”

কবিতা ও কল্পকাহিনী লেখার পাশাপাশি চীন বিভিন্ন এশীয় লেখকের কবিতা অনুবাদ করেছে। বিশেষত আধুনিক চীনা কবি আই কিং, ভিয়েতনামিয়ান কবি হু শান হ্যাং এবং জাপানি কবি গাজা ইয়োশিমাসুসহ অনেকের কবিতাই অনুবাদ করেছেন। তিনি এশীয়-আমেরিকান লেখার মতো ডিসিডান্ট সং (১৯৯১) এবং এশীয়-আমেরিকান কবিতা : দ্য নেক্সট জেনারেশন (২০০৪) কৃতিত্বের সঙ্গে সম্পাদনা করেন।

তিনি আনিসফিল্ড ওল্ফ বুক অ্যাওয়ার্ড, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র আর্ট ফাউন্ডেশন অ্যাওয়ার্ড, দ্য র্যা ডকিলিফ ইন্সটিটিউট ফেলোশিপ অ্যাট হার্ভার্ড, রকফেলার ফাউন্ডেশন ফেলোশিপ, দুটি এনইএ, স্টেগনার ফেলোশিপ, পিইএন/জোসেফাইন মাইলস পুরস্কার, পাঁচটি পুশকার পুরস্কারসহ অসংখ্য পুরষ্কার জিতেছেন। তাইওয়ানের ফুলব্রাইট ফেলোশিপ, ল্যানন রেসিডেন্সি এবং অন্যান্য। ২০১৭ সালে, তিনি এশিয়ান প্যাসিফিক দ্বীপপুঞ্জ ককাস এবং ক্যালিফোর্নিয়া অ্যাসেমব্লির দ্বারা তাঁর সক্রিয়তা এবং শিক্ষায় দক্ষতার জন্য সম্মানিত হয়েছেন।

চীন ফুলব্রাইট প্রফেসর হিসাবে তাইওয়ানসহ এবং অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতে একজন অতিথি অধ্যাপক হিসাবে অনেক দেশেই প্রতিনিধিত্ব করেছেন এবং শিখিয়েছেন। তিনি সান দিয়েগো স্টেট ইউনিভার্সিটিতে এমএফএ প্রোগ্রামটি পরিচালনা করেন, যেখানে তিনি ইংরেজি বিভাগের ইমেরিটাস অধ্যাপক। 

 

মেরিলিন চিনের হাইকুগুচ্ছ


আমি সম্রাটের কুকুর ছানাকে আদর করিনি,
কালো যার নাম
                   কামানের গোলা


সোনালি সিঁড়িসমূহ বেয়ে
তার মহিমা ঝরছিল
           সুখী প্রাসাদ অন্বেষণে…


প্রাচীন পুকুর;
ব্যাঙটি ভেতরে ঢুকে পড়ে—আরো ভেতেরে— 
                                       —গভীরে জলোচ্ছাস


ঝোপ থেকে ফোটা ফোটা রক্ত
এঁকেছিলো অতি ক্ষুদ্র বন্দুক
                বলেছিলো—মরে যাও!


অবিশ্বাস্য—কলমের নগ্ন নিব
একটি খেজুর গাছে
        আঁকছে আরেকটি খেজুর গাছ


আমি যখন চূড়ার নিচে
বদলে যাওয়া,
      আমাকে স্বাগত জানায় বিপুল বেগানা;


একশ লাল আগুনের পিঁপড়া
ধাওয়া করছে পিছে,
            চষে ফেলছে সাদা পি’আনি


ঝরে পড়ছে ফণিমনসার ঝোপে
ফিরে এসো ঝিমিয়ে পড়া চূড়ায়
               তারপর উঠে দাঁড়াও পুনর্বার…


নিবদ্ধ দৃষ্টিতে তাকাও দগ্ধা পর্বতে
বিষাদগ্রস্ত শামিয়ানা,
            আমরা তো ঈশ্বরের মেয়ে।

 

উৎস : পয়েট্রি.কম


রেজাউল ইসলাম হাসু

জন্ম ১০ ডিসেম্বর, ১৯৮৭; রংপুর।

শিক্ষা : হিসাববিজ্ঞানে স্নাতকোত্তর, সরকারি বাঙলা কলেজ, ঢাকা।

পেশা : চাকরি [একটি বেসরকারি সংস্থায় উন্নয়নকর্মী হিসেবে।]

প্রকাশিত বই
ওকাবোকা তেলাপোকা [ শিশুতোষ, ২০১৬]
এলিয়েনের দেশ পেরিয়ে [শিশুতোষ, ২০১৭]

সম্পাদনা : www.belabhumi.com [ বাংলা ভাষার সৃজনে অনলাইন সাহিত্যপত্রিকা ]

মেইল : rejaulislamhashu1987@gmail.com

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *